Subscribe:

উঠতি যৌবন এর খেলা পাশের বাড়ীর অ্যান্টির সাথে

আমার বয়স তখন ১৬ / ১৭। উঠতি যৌবন। নিজেকে সামাল দিতে কস্ট হয়। এর মধ্যে আমাদের বাসা বদল করল। পাশের বাসায় থাকতো এক আন্টি। আন্টির বয়স বেশি না। ২৩ কি ২৪ হবে। ৩ / ৪ বছর হইলো বিয়ে হয়েছে। একটা ছোট বাচ্চাও আছে। নাম অমি। আমি ছোট বেলা থেকেই অনেক মেধাবি ছিলাম। তাই আমাকে অনেকেই আদর করে অনেক কিছু খাওয়াত। ছোট বেলায় তো কোলে করে নিয়ে আদর করতো। যাই হোক ঐ বাসায় যাবার পর থেকেই আমার ঐ আন্টির উপর নজর পরে। খুব ইচ্ছা ছিল আন্টিকে নেংটা দেখব। কিন্তু কিভাবে তা বুঝে উঠতে পারিনা। যাই হোক আমার তখন এস এস সি পরিক্ষা। আন্টিকে সালাম করে আসলাম। আন্টিও খুশি হয়ে আমাকে ১০০ টাকা দিলেন। আমি পরিক্ষা দিলাম। পরিক্ষা ভালই হ্ল। আমি আন্টিকে মিস্টি খাওয়ালাম। আমাদের বাসার মাঝখানে একটা কমন দরজা ছিল। যেটা দিয়ে আমরা যাওয়া আসা করতে পারতাম। ওটা সবসময় খোলাই থাকত। আন্টির ফিগার টা ছিল দারুন। ফরসাও ছিল। এর মধ্যে আমি ইন্টারমিডিয়েটে ভর্তি হ্লাম। আন্টির জামাই টা ছিল অনেক বয়সি। ৪০ / ৪৪ হবে। ঠিক মতন কিছু করতে পারত কিনা সন্দেহ আছে। যাই হোক, আমি ওনার বাচ্চার সাথে খেলার জন্যে মাঝে মাঝেই যেতাম তার বাসায়। এমনি একদিন তার বাসায় গেছি দুপুর বেলায়। যেয়ে দেখি আন্টি নাই। অমিকে জিজ্ঞাসা করলাম আন্টি কোথায়? ও বলল, আম্মু

মামীকে ঘুমের ওষুধ দিয়ে

ছোটমামী সম্ভবত প্রথম নারী যাকে দেখে আমি উত্তেজিত হতে শিখেছি। ওনার বিয়ের সময় আমি ফোরে পরি। ওই বয়সে শরীরে যৌন চেতনা থাকার কথা না। কিন্তু কেন যেন ছোট মামা বিয়ে করবেন শোনার পর থেকেই আমি বালিশের কোনাটা আমার বুকে চেপে কল্পনা করতাম ছোটমামী তার বাচ্চাকে কীভাবে দুধ খাওয়াচ্ছে। আশ্চর্য এটা কেন যে কল্পনা করতাম এখনও মাথায় আসেনা। ওনাকে ভালো করে দেখার আগে থেকেই ওনার দুধের প্রতি আমার একটা আগ্রহ চলে আসে। সেই আগ্রহের মধ্যে কিছুটা হলেও লালসা ছিল। নয় বছরের একটা কিশোর এরকম কিছু ভাবছে, কেউ বিশ্বাস করবে? কিন্তু এটা খুব সত্যি। ছোটমামী আমার দেখা প্রথম নববধু। উনি আসলেই খুব সুন্দরী আর উদ্ভিগ্ন যৌবনা নারী ছিলেন। এরকম আর কেউ ছিল না আমার আত্মীয় স্বজনের মধ্যে। ফলে আমার মধ্যে একটা অবসেশান কাজ করতো ছেলে বেলা থেকেই। বড় হবার পরও ছিল সেটা। ছোটবেলার সেই অবসেশান বড় হবার পর চোদার খায়েশে পরিনত হয়েছিল। মামী তখন গ্রামে থাকতো। আমি যখন স্কুলের উপরের